সাতক্ষীরা বাস মালিক সমিতির সম্পাদকের বিরুদ্ধে সভাপতির নানা অভিযোগ

আব্দুল জলিল, সাতক্ষীরা ॥ সাতক্ষীরা বাস মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস মালিক সমিতি (রেজিঃ নম্বর খুলনা ২০৯১) নিয়ে একটি স্বার্থান্বেষী মহল ষড়যন্ত্রে নেমেছে। তারা গঠনতান্ত্রিক বিধিবিধান না মেনে যথেচ্ছ আচরন শুরু করেছে। সাতক্ষীরা জেলা বাস মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস মালিক সমিতির সভাপতি সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব সভাপতি বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আবু আহমেদ সোমবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন সংশিষ্ট মহলটি আইনের প্রতিও বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ফায়দা লুটবার চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।
প্রেস ব্রিফিংয়ে অধ্যক্ষ আবু আহমেদ বলেন, সমিতির সাধারন সম্পাদক গোলাম মোরশেদ নিজেকে হঠাৎ করে স্বঘোষিত আহবায়ক ঘোষণা করে একটি প্রেস রিলিজ পাঠিয়েছেন। এই প্রেস রিলিজে মালিক সমিতির নির্বাচনের তারিখও ঘোষণা করেছেন তিনি। প্রকৃতপক্ষে একজন সাধারন সম্পাদক সমিতির সভাপতির সাথে পরামর্শ না করে সাধারন সভা ডাকতে পারেন না। তাছাড়া যে কথিত সাধারন সভার কথা বলেছেন তিনি, সেই সভায় মালিক সমিতির সভাপতি সভাপতিত্ব করেননি। সভাপতিত্ব করেছেন প্রাক্তন কমিটির সহসভাপতি আশরাফুল ইসলাম। এর কোনোটিই গঠনতন্ত্র অনুমোদন করে না বলে মন্তব্য করেন তিনি। সেই দৃষ্টিকোণ থেকে বলা যায় সাধারন সভা আহবান যেমন অবৈধ তেমনি কথিত সাধারন সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহও অবৈধ। কারণ গোলাম মোরশেদের সাধারন সভায় জেলার প্রায় ৩০০ মালিকের মধ্যে উপস্থিত মালিকের সংখ্যা ছিল সর্বোচ্চ ৬০ জন। প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি আরও বলেন গঠনতন্ত্রের ২৫ এর ‘খ’ ধারা অনুসারে সাধারন সভা আহবানের নিয়ম অনুযায়ী কমপক্ষে ১৫ দিন আগে নোটিশ দিতে হয়। অথচ গোলাম মোরশেদ সাধারন সভা ডেকেছেন মাত্র দুইদিন আগে। এতে সাধারন সভার কোরাম পূরন হয়নি বলে উল্লেখ করেন তিনি। গোলাম মোরশেদ ০১.০২.১৮ তারিখে নোটিশে সই দেখিয়ে ০৩.০২.১৮ সাধারন সভা ডেকেছেন। যা সম্পূর্ণ অবৈধ ও অগঠনতান্ত্রিক।
প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন সংশোধিত গঠনতন্ত্র অনুযায়ী অধ্যক্ষ আবু আহমেদের নেতৃত্বে ৩ বছর মেয়াদের কমিটি গঠিত হয় ২০১৭ সালের ৩০ মার্চ। সেই হিসাবে ২০২০ সালে এই কমিটির মেয়াদ হবার কথা। গঠনতন্ত্রের ২৫ এর ‘খ’ ধারা অনুযায়ী মোরশেদ আহুত সাধারন সভা যেমন বেআইনি তেমনি এতে গৃহিত সিদ্ধান্তও বেআইনি। হাইকোর্টের রুল অনুযায়ী অধ্যক্ষ আবু আহমেদ নেতৃত্বাধীন কমিটির মেয়াদ এখনও বহাল রয়েছে। গোলাম মোরশেদ ও তার সহযোগীরা যা করেছেন তা সম্পূর্ন বেআইনি, অবৈধ এবং গঠনতন্ত্রবহির্ভূত। আমি এধরণের অগঠনতান্ত্রিক সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং সেই সাথে জড়িতদের নিয়মতান্ত্রিক পথে ফিরে আসার আহবান জানাচ্ছি।
সাধারন সম্পাদক গোলাম মোরশেদ কর্তৃক আদালতের নির্দেশ পরিপন্থি এবং গঠনতন্ত্রের বিধিবিধান পরিপন্থি সকল কার্যক্রমকে অবৈধ হিসাবে আখ্যায়িত করে তিনি বলেন অধ্যক্ষ আবু আহমেদ নেতৃত্বাধীন কমিটি গঠনতান্ত্রিকভাবে এখনও বহাল রয়েছে। এনিয়ে যে কোনো ধরণের অপপ্রচার ও বিভ্রান্তিমূলক প্রচারে কান না দেয়ারও আহবান জানান তিনি।