কচুয়ায় জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতা নিয়ে নানা অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ

কচুয়া (বাগেরহাট) প্রতিনিধি॥ কচুয়ায় জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতা-২০১৮ অনুষ্ঠানে শিশুদের প্রতিই অনিয়ম ও দুর্নীতি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন শিশুদের অভিভাবক ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ের প্রধানরা।
জানা যায়, কচুয়ায় জতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতা-২০১৮ এর ব্যানারে লেখা আছে, জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতা-২০১৮এর প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে গত ১৮ ও ১৯ জানুয়ারি। অথচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানটি শুরু হয়েছে ২১ জানুয়ারি উপজেলা মিলনায়তনে। এছাড়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কিছু শিক্ষক জানান, উপজেলার শতাধিক বিদ্যালয়ের ২৮টি বিষয়ের ৭৪টি প্রত্রিযোগিতায় উপজেলার শত শত প্রতিযোগি ছাত্র ছাত্রী অংশ নেয়। আর এই শত শত প্রতিযোগির বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন মাত্র ৩ জন। তারা হলেন ইনস্ট্রাকটর কেরামত আলী, সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা শিকদার নুরুল ইসলাম ও সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা মানষ তালুকদার। শিশুদের গার্ডিয়ানদের প্রশ্ন এভাবে শতাধিক বিদ্যালয়ের শতশত ছাত্র ছাত্রীর ৭৪টি প্রতিযোগিতায় মাত্র ৩ জন বিচারক থাকায় বিচারকার্য পরিচালনায় প্রতিবন্দকতার সৃস্টি হচ্ছে, আর বিচার কার্য হচ্ছে ব্যহত। ফলে শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতায় শিশদের প্রতিই অনিয়ম ও দূর্নীতি করা হচ্ছে বলে শিশুদের গার্ডিয়ান ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ের প্রধানরা এই প্রতিনিধিকে জানান। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শামীমা আক্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি সেখ সরোয়ার হোসেন, প্রধান শিক্ষক দেব দাস সাহা, প্রধান শিক্ষক সলিল বরন পাইক, প্রধান শিক্ষক মন্ডল সমারেস চন্দ্র, শিক্ষক তপন কুমার সাহা, প্রধান শিক্ষক কনিকা দাস, প্রধান শিক্ষক র্ঝণা মন্ডল, শিক্ষক কমল চন্দ্র বৈদ্য, শিক্ষক তানিয়া আক্তারসহ উপজেলার সকল প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এবং মাদ্রসার শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রী। সবশেষে বিজয়ীদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ করা হয়।