কালিয়ায় জমিজমা নিয়ে বিরোধ, গুলিবিদ্ধ ১৩

নড়াইল সংবাদদাতা ॥ নড়াইলের কালিয়া উপজেলার নড়াগাতি থানার পানিপাড়া গ্রামে অরুনিমা রিসোর্ট গলফ ক্লাব ও ইকোপার্কে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের ছোড়া গুলিতে কমপক্ষে ১৩ জন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন খাসিয়াল গ্রামের আকিদুল ইসলাম, জাকির মোল্যা, রহিম শেখ, সরোয়ার ফকির, আব্দুর রকিব, কালু মোল্যা, সাবু বিশ্বাস, আলতাফ শেখ, মিজান হোসেন, নাবিল হোসেন, মেহেদী হাসান, রিপন হোসেন ও আরাফাত রহমান। গুলিবিদ্ধদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে মাথায় গুলিবিদ্ধ আকদুলের অবস্থা সংকটাপন্ন। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে। ঘটনার সময় হামলাকারিরা সেচপাম্প স্থাপনের যন্ত্রপাতিসহ টংঘর ভাংচুর ও লুট করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনার পর থেকে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। নড়াগাতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বেলায়েত হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
পুলিশ ও এলাকাবাসি সূত্রে জানা গেছে, অরুনিমা রিসোর্ট গলফ ক্লাব ও ইকোপার্কের মালিক মোল্লা খবির উদ্দিনের সাথে একটি জমি নিয়ে খাসিয়াল গ্রামের মিজানুর রহমান বিশ্বাসের দ্বন্দ্ব-সংঘাত চলে আসছিল। শুক্রবার বিরোধপুর্ণ ওই জমিতে মিজানুর রহমান বিশ্বাস স্যালোমেশিন বসাতে গেলে অরুনিমা রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ বাঁধা দিলে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে দু’পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষ চলাকালে গুলিতে ১৩ জন গুলিবিদ্ধ হন। অরুনিমা গলফ ক্লাবের ব্যবস্থাপক মোল্যা শাহাদত হোসেন বলেন, প্রতিপক্ষ গ্রুপের লোকজন সংঘবদ্ধ হয়ে আমাদের গলফ ক্লাব ও ইকো পার্কে হামলা চালালে আত্মরক্ষার্থে পার্কের লাইসেন্সকৃত বন্দুক দিয়ে গুলি ছোড়া হয়। তবে আহত হওয়ার বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে জানান। প্রতিপক্ষ জমির মালিকানা দাবিকারী মিজানুর রহমান বিশ্বাস জানান, বিরোধপুর্ণ জমিতে স্যালোমেশিন বসাতে গেলে পার্কের মালিক খবির উদ্দিনের লোকজন অতর্কিতভাবে আমাদের লোকজনের উপর গুলি চালায়। এতে ১৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়েছেন।
নড়াগাতি থানার ওসি জানান, ঘটনা শোনার পরই পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।