যশোর হাসপাতালে রোগীর স্বজনের উপর হামলা ও বোমা বিস্ফোরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে শহরের রায়পাড়ার সন্ত্রাসী স্বজল পক্ষ বাবু নামে যুবককে রক্তাক্ত জখম করেছে। এসময় হামলাকারীরা বোমা বিস্ফোরণ করে পুরো হাসপাতাল আতংকিত করে তোলে। শনিবার সন্ধ্যার দিকে হাসপাতালের দ্বিতীয় তলায় তত্ত্বাবধায়কের কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।
এলাকাবাসীর ভাষ্য মতে, শনিবার বিকাল ৪টার দিকে শহরের চাঁচড়া রায়পাড়া কয়লাপট্টি এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আল-আমিন ও সজল পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। এতে সজল ও তার মাতা জাহেদা বেগম এবং প্রতিপক্ষের আল-আমিন আহত হয়। আহতদের সন্ধ্যার দিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপরই হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আল-আমিনের স্বজন বাবুকে একা পেয়ে ধাওয়া করে প্রতিপক্ষ সজলের লোকজন। বাবুকে ধাওয়া করলে হাসপাতালের দ্বিতীয় তলায় মহিলা ওয়ার্ডে রোগীর বেডের নিচে গিয়ে পালায়। সেখানেই মারপিট করা হয় বাবুকে। এরপর হামলাকারী স্বজল পক্ষে দ্বিতীয় তলায় তত্ত্বাবধায়কের কার্যালয়ের সামনে একটি বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে স্থান ত্যাগ করে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বিস্ফোরিত বোমা আলামত উদ্ধার করেছে।


মহিলা ওয়ার্ডের সিনিয়র স্টাফ নার্স তৃপ্তি লতা গোস্বামী জানান, ৪/৫ জন যুবক বাবু নামে একজনকে ধাওয়া করলে সে এই ওয়ার্ডের রোগীর বেডের নিচে লুকানোর চেষ্টা করে। কিন্তু রোগীর বেডের নিচেই তার উপর হামলা করে ওই যুবকরা। এসময় রোগী, স্বজন ও নার্সদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। তিনি আরও বলেন, ওয়ার্ডে রোগীর বেডের নিচে হামলা নজিরবিহীন। এভাবে দায়িত্ব পালন করা নার্সদের জন্য কঠিন।
যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক একেএম কামরুল ইসলাম বেনু বলেন, রোগীর স্বজনদের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এক পক্ষ দ্বিতীয় তলায় বোমা বিস্ফোরণ করেছে।
যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি একেএম আজমল হুদা জানান, হাসপাতালের মধ্যে দুই গ্রুপ চাকু মারামারি করেছে এবং একটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে।

SHARE