আজ উদ্বোধন করবেন শিক্ষামন্ত্রী, ভেন্যু উপশহর ক্রীড়া উদ্যান
যশোরে এক যুগ পর গ্রীষ্মকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আসর ঘিরে উৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ দীর্ঘ এক যুগ পর যশোরে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জাতীয় পর্যায়ের গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বের খেলা। আজ সকালে যশোর উপশহর ক্রীড়া উদ্যানে এই প্রতিযোগিতা উদ্বোধন করবেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি। পাঁচ দিনের প্রতিযোগিতাকে ঘিরে যশোরে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। ভেন্যুকে সাজানো হয়েছে। মুখরিত হয়ে উঠেছে স্কুল পর্যায়ের খেলোয়াড়, রেফারি, ক্রীড়া সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের পদচারণায়। এতে সারাদেশের ৫২৮জন খেলোয়াড় অংশ নেবে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর বাংলাদেশ’র শারীরিক শিক্ষা বিভাগের উপপরিচালক ও বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা ক্রীড়া সমিতির সম্পাদক বুধবার বিকেলে যশোর সার্কিট হাউসে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।
সংবাদ সম্মেলনে প্রফেসর ফারহানা হক জানান, ৪৬তম গ্রীষ্মকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ২০১৭ উপলক্ষে সারাদেশকে বকুল, গোলাপ, পদ্ম ও চাঁপা অঞ্চলে ভাগ করা হয়েছে। প্রতিযোগিতায় সারাদেশের এই ৪টি অঞ্চলের ৫২৮জন খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করবে। এদের মধ্যে ফুটবল ছাত্র খেলোয়াড় ৬৪জন, ফুটবল ছাত্রী খেলোয়াড় ৬৪জন। হ্যান্ডবল ছাত্র খেলোয়াড় ৪৮জন, হ্যান্ডবল ছাত্রী খেলোয়াড় ৪৮ জন, কাবাডি ছাত্র খেলোয়াড় ৪৮ জন ও ছাত্রী খেলোয়াড় ৪৮ জন। এছাড়াও সাঁতার প্রতিযোগিতায় ১১টি ইভেন্টে ১০৪ জন ছাত্র ও ১০৪ জন ছাত্রী খেলোয়াড় অংশ নেবে। চট্টগ্রাম, সিলেট ও কুমিল্লাকে নিয়ে সবুজ রঙের জার্সিতে খেলবে বকুল অঞ্চল। বেগুনি জাসি মাঠে নামবে খুলনা ও বরিশালের গোলাপ অঞ্চলকে। ঢাকা ও ময়মনসিংহকে নিয়ে গঠিত পদ্ম অঞ্চলের খেলোয়াড়দের গায়ে দেখা যাবে নীল রঙের জার্সি। আর রক্তিম লালে প্রতিযোগিতা করবে রাজশাহী ও রংপুরের চাঁপা অঞ্চল। সাঁতারের ১১টি ইভেন্ট বাদে সব খেলা যশোরের উপশহর ক্রীড়া উদ্যানে অনুষ্ঠিত হবে। সাঁতার অনুষ্ঠিত হবে কুষ্টিয়াতে।
বিভিন্ন অঞ্চলের খেলোয়াড়ারদের থাকার স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে শহরের জিলা স্কুল, সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, যশোর শিক্ষাবোর্ড স্কুল এন্ড কলেজ, মুসলিম একাডেমি স্কুল ও বাদশা ফয়সাল ইসলামী ইনস্টিটিউট।
ফারহানা হক আরও জানান, ১৮ সেপ্টেম্বর প্রতিযোগিতার সমাপনী দিনে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হবে। প্রতিযোগিতার আয়োজনকে ঘিরে যশোরে উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। আগেই সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করে আয়োজক কমিটি।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন শিক্ষা সচিব সোহরাব হোসাইন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোহাম্মদ মাহাবুবুর রহমান, সিলেট শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান এ.কে.এম গোলাম কিবরিয়া তাপাদার, মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর একেএম ছায়েফ উল্যা, কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মোস্তাফিজুর রহমান, যশোরের জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দিন। সভাপতিত্ব করবেন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. এসএম ওয়াহিদুজ্জামান।
সংবাদ সম্মেলনে যশোর শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল আলীম বলেন, যশোর জেলা স্টেডিয়ামের সংস্কার কাজ চলমান থাকায় ভেন্যু হিসেবে উপশহর কেন্দ্রীয় ক্রীড় উদ্যান নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়াও যশোরের সুইমিং পুলটির ব্যবস্থাপনা খারাপ হওয়ায় সেটি ব্যবহার অনুপযোগী। এজন্য কুষ্টিয়া সুইমিং পুল নির্ধারণ করা হয়েছে। সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে প্রতিযোগিতা সম্পন্ন করার জন্য সব রকমের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন যশোর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর মাধব চন্দ্র রুদ্র, কলেজ পরিদর্শক অমল কুমার বিশ্বাস, স্কুল পরিদর্শক আহসান হাবীব, জেলা ক্রীড়া অফিসার আ.স.ম আসাফুদ্দৌলা প্রমুখ।

SHARE