মানবসৃষ্ট জলাবন্ধতায় মুনসেফপুরের ২শ’ পরিবার

রাসেল মাহমুদ, রূপদিয়া (যশোর) থেকে॥ যশোর সদর উপজেলার কচুয়া ইউনিয়নের মুনসেফপুরে ২শ’ পরিবার পানি বন্দি হয়ে দুর্বিসহ জীবনযাপন করছে। মানবসৃষ্ট জলাবন্ধতায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে তারা।
সরেজমিনে দেখা যায়, বৃষ্টির মৌসুম না হলেও পানিবন্দি হয়ে আছে অন্তত ২শ’ পরিবারের সদস্য। এক প্রভাবশালী ব্যক্তির গায়ের জোরে বাঁধ দিয়ে পানি বের হতে বাধাগ্রস্ত করেছে। এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তি হওয়ায় হয়রানির ভয়ে এই পরিবারগুলো নিরবে কষ্টে জীবনযাপন করছে। ক্ষতিগ্রস্ত দাউদ মোল্লা কান্না বলেন, প্রায় ১২ বছর পূর্বে মুনসেফপুর এই স্থানে ১৪ শতক জমি ক্রয় করে বাড়ি নির্মাণ করে পরিবার-পরিজন নিয়ে সুখে-শান্তিতে দিন কাটিয়ে আসছিলাম। কিন্তু সম্প্রতি স্থানীয় মেম্বার নজরুল ইসলাম এই এলাকার পানি বের হওয়ার ড্রেনের মুখে মাছের ঘের কেটে বাঁধ দিয়ে রেখেছে। যার ফলে এখন আর এক ফোটাও পানি বের হয় না। যে কারণে বছর জুড়ে জলাবদ্ধ হয়ে জীবন কাটাতে হচ্ছে ২শ’ পরিবারের। সে যদি পাশ দিয়ে সামান্য একটা ক্যানালও করে রাখতো তাও পানিবন্দি হতে হতো না। তার এই এক ব্যক্তিস্বার্থের কারণে আমার ২টি ঘরই পানিতে ভেঙ্গে পড়েছে।
এব্যাপারে ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কুদ্দুস মোল্লা জানান, আমাদের গ্রামটি এই ২শ’ পরিবার সত্যিই অসহায় হয়ে পড়েছে। নজরুল মেম্বার যদি তার ঘেরের পাশ দিয়ে পানি বের হওয়ার জন্য সামান্য ব্যবস্থা করে রাখতো তাহলে এই স্থায়ী জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হতো না। এই সমস্যাটির ব্যাপারে ভুক্তভোগী আব্দুল গফ্ফার, আব্দুল ওহাব, আবু দাউদ, তক্কেল আলী, মাহফুজ হোসেন, মনিরুল ইসলাম, মোহাম্মাদ আলীসহ এলাকার অর্ধশত লোক কুদ্দুস মোল্লার মতই একই কথা বলেন। বাঁধ সৃষ্টিকারী নজরুল মেম্বারের এই কার্যকলাপে অসহায় জীবন-যাপনকারীরা যশোর জেলা প্রশাসকের নিকট পরিত্রাণ চেয়ে গণ-স্বাক্ষরকৃত একটি অভিযোগ প্রদান করেছে। এই ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে প্রভাবশালী নজরুল মেম্বার অসহায় ৮জন ব্যক্তির নামে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ দিয়েছে। এব্যাপারে মেম্বার নজরুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সঠিক নয়। এলাকাবাসীকে সে কয়েক বার ডাকলেও তারা আসেনি।

SHARE