নড়াইল প্রতিনিধি॥ জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে নড়াইল জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান মুকুলকে অপহরণ মামলার আসামি করার প্রতিবাদে গতকাল শুক্রবার দুপুরে শহরের রুপগঞ্জস্থ একটি কমিউনিটি সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ কামরুজ্জামান স্বপন।
লিখিত বক্তব্যে কামরুজ্জামান স্বপন বলেন, গত ২১ আগস্ট জেলা প্রশাসকের বাসভবনের সামনে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে জমি রেজিস্ট্রি করার জন্য এক নারীকে জোর-জবরদস্তি করে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নেয়ার চেষ্টা করা হয়। সেই অভিযোগের প্রেক্ষিতে ওই নারীর ছেলে পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের ইবনে মশিয়ার নড়াইল জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান মুকুলসহ ৭জনকে আসামি করে ঘটনার তিনদিন পর সদর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন। ঘটনার দিন সন্ধ্যা ৬টার দিকে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মুকুল ছাত্রলীগ নেতা রাকিবকে নিয়ে বন্যার্ত মানুষের সাহায্যার্থে ত্রাণ সংগ্রহ কার্যক্রমের বিষয়ে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য তার বাসভবনের গেটের সামনে উপস্থিত হলে পাশে চেচামেচির শব্দ শুনতে পান। তিনি (সেক্রেটারী) দেখেন একটি মাইক্রোবাস দ্রুত গতিতে বেপরোয়াভাবে আসছে। বিষয়টি তিনি সদর থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ফোনে অবহিত করে মাইক্রোবাসটি থামানোর চেষ্টা করেন। এ সময় মাইক্রোবাস থেকে এক নারী লাফ দিয়ে পড়ে যান। একটি স্বার্থান্বেষী মহল বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে ছাত্রলীগকে বিতর্কিত করতে এবং ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মুকুলকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য ওই ঘটনায় মুকুলের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। নড়াইল জেলা ছাত্রলীগ এই মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলায় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মুকুলসহ অন্যান্য ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দকে আসামি করায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।
সংবাদ সম্মেলনে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ইনামুল শেখ, তৌহিদুর জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো: শরিফুল ইসলাম বাপ্পী, ছাত্রলীগ সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ শাখার সেক্রেটারী পলাশ হাসান জয়, লোহাগড়া উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক রাশেদ হাসান প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

SHARE