একতরফা পদক্ষেপ না নেওয়ার হুঁশিয়ারি প্যারিস সম্মেলনে

সমাজের কথা ডেস্ক॥ ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে শান্তি আলোচনা শুরুর চেষ্টা নিয়ে অনুষ্ঠিত বড় ধরনের আন্তর্জাতিক সম্মেলনে দুপরে কাউকেইএকতরফাভাবে কোনও পদপে না নেওয়ার ব্যাপারে হুঁশিয়ার করা হয়েছে।
সম্মেলনের বিবৃতিতে বিশ্বের ৭০ টি দেশের প্রতিনিধিরা  স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের আহ্বান জানিয়ে কয়েকদশকের পুরোনো সমস্যার দ্বিরাষ্ট্রিক সমাধানকে নতুন করে সমর্থন জানান।

ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনকে এই দ্বিরাষ্ট্রিক সমাধানে প্রকৃতভাবেই প্রতিজ্ঞাবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান প্রতিনিধিরা। একইসঙ্গে ইসরায়েল-ফিলিস্তিন দুপকে সতর্ক করে তারা বলেন, কারোই কোনও একতরফা পদপে নেওয়া উচিত নয়, যাতে ভবিষ্যৎ আলোচনা তিগ্রস্ত হয়।

কিন্তু বিবৃতিতে প্রতিনিধিরা ইসরায়েলে নিযুক্ত মার্কিন দূতাবাস তেল আবিব থেকে জেরুজালেমে হস্তান্তরের ব্যাপারে নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অবস্থান নিয়ে কোনও সমালোচনা করেননি।

ফিলিস্তিনিরা এ সম্মেলনকে স্বাগত জানালেও ইসরায়েল এ সম্মেলকে ‘তাৎপর্যহীন’ আখ্যা দিয়েছে। ইসরায়েল বলছে, তাদের বিরুদ্ধেই এ সম্মেলন ডাকা হয়েছে।

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেন, এ উদ্যোগ শান্তি প্রচেষ্টাকে আরও পেছনে নিয়ে যাবে।

ইসরায়েলের পাশপাশি ফিলিস্তিনও এ সম্মেলনে অংশ নেয়নি।

এর আগে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে সরাসরি শান্তি আলোচনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু উভয় পরে বিদ্বেষপূর্ণ মনোভাবের কারণে ২০১৪ সালের এপ্রিলে ওই উদ্যোগ ভেস্তে যায়।

গত মাসে জেরুজালেম ও পশ্চিম তীরের অধিকৃত এলাকায় ইসরায়েলের বসতি স্থাপণ নিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে একটি প্রস্তাবনা পাস হয়।

ওই প্রস্তাবনায় ইসরায়েলকে অধিকৃত এলাকায় বসতি স্থাপণ বন্ধ করতে বল্য়া ইসলায়েল ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনের মধ্যে সম্পর্কের টানাপোড়েন শুরু হয়েছে।

জাতিসংঘ প্রস্তাবনায় যুক্তরাষ্ট্র ভোট না দিলেও এতে ভেটো মতাও প্রয়োগ করেনি। এতে ুব্ধ ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর অভিযোগ, বারাক ওবামা প্রশাসন কলকাঠি নেড়ে ওই প্রস্তব পাস করিয়েছে।

হোয়াইট হাউজের প থেকে এ অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

নিজেদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের জন্য অধিকৃত পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেম দাবি করেছে ফিলিস্তিন, যেখানে প্রায় ছয় লাখ ইসরায়েলির বাস।

আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী, পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমে ইসরায়েলের দখল অবৈধ।

অন্যদিকে, ইসরায়েলি কর্তৃপরে অভিযোগ, ফিলিস্তিনিদের উস্কানি ও সহিংসতা এবং ইসরায়েলকে ইহুদি রাষ্ট্র হিসেবে মেনে নিতে অস্বীকৃতিই ওই অঞ্চলে শান্তির পথে প্রধান অন্তরায়।

SHARE